ঢাকা ০৩:২৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
দর্শনা হল্ট রেলওয়ে পুলিশের সহযোগীতায় হারানো ব্যাগ সহ ব্যাগের মধ্যে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ফিরে পেলেন এক যাত্রী রাজশাহী জেলা শাখা স্বাচিপ সভাপতি ডা. জাহিদ ও সম্পাদক ডা. অর্ণা জামান চুয়াডাঙ্গায় রেললাইনে ফাটল ধীরগতি ট্রেন চলাচল দর্শনা হল্ট রেলওয়ে স্টেশনে বিশেষ অভিযানে সাগরদাড়ী এক্সপ্রেস ট্রেনের বগি থেকে একজন পকেটমার গ্রেফতার গুলিবিদ্ধ হয়ে জীবনশঙ্কায় স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী গাজা নিয়ে মতবিরোধ, প্রথম ইহুদি-আমেরিকান বাইডেন কর্মকর্তার পদত্যাগ শ্রম আইন সংশোধনে আইএলও’র পরামর্শ গ্রহণ নিয়ে নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ে আলোচনা হবে: আইনমন্ত্রী রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব থেকে শোইগুকে সরিয়ে দিচ্ছেন পুতিন ভয়াবহ আগুন ইসরাইল সেনাঘাঁটিতে নতুন করে চুরি হয়নি রিজার্ভ : বাংলাদেশ ব্যাংক

বায়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর বিদায় সংবর্ধনা ও মা সমাবেশ অনুষ্ঠিত

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:৪২:৪৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ নভেম্বর ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীর পবা উপজেলার বায়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আয়োজনে অত্র বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা, অভিভাবকদের নিয়ে মা সমাবেশ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আয়োজিত মা সমাবেশে মায়েদের স্বতঃস্ফূর্ত উপস্থিতিতে এক উৎসব মূখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়। এসময় বিদায়ী শিক্ষার্থীদের শিক্ষা সামগ্রী ও রজনীগন্ধার ফুলের শুভেচ্ছা দেওয়া হয়। শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) সকাল ১০ টায় বায়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মিলনায়তনে ও ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ পবা এপির সহযোগিতায় বিদায় সংবর্ধনা, মা সমাবেশ ও আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি মো: সারোয়ার জাহান।

উপস্থিত ছিলেন উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ রফিকুল ইসলাম, উপজেলা রিসোর্স সেন্টার ইন্সট্রাক্টর মোছাঃ রেহেনা আক্তার, অত্র বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক খালেদা বানু, ব্যবস্থাপনা কমিটির সহ-সভাপতি আশরাফ আলী ও সদস্য মোসাঃ নাসরিন বেগম।

অত্র বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মনিকা মোস্তফা ও সাদিয়া ইসলাম এর যৌথ সঞ্চালনায় উপস্থিত ছিলেন অবসরপ্রাপ্ত সহঃ শিক্ষক মোসাঃ সায়লা বেগম ও মোসাঃ সেলিনা ইয়াসমিন সহ বিদ্যালয়ের সকল সহকারী শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষার্থীবৃন্দ।

বিদায়ী শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে চতুর্থ শ্রেণীর শিক্ষার্থী নাফিসা আক্তার মীম বলেন, আজকের পর আর কখনো বড় ভাই বোনদের সাথে খেলাধুলা, দেখা সাক্ষাৎ হবে না। নতুন প্রতিষ্ঠানে তারা ভালো করে পড়াশোনা করবে, ভালো মানুষ হবে। ভুল ত্রুটি মাফ করে দিবে।

উপস্থিত অভিভাবক মায়েদের বক্তব্যে পূর্বের চেয়ে লেখাপড়ার মান বৃদ্ধি পাওয়ায় বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার রফিকুল ইসলাম বলেন, শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধির লক্ষ্যে সরকার নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। বিদ্যালয়ের অবকাঠামো নির্মাণসহ অন্যান্য চাহিদা পূরণের জন্য শিক্ষাবান্ধব সরকার বিভিন্ন বরাদ্দ দিয়ে যাচ্ছেন। শিক্ষার পরিবেশ নিশ্চিত করতে বিদ্যালয়ের পাশাপাশি মায়েদের ভূমিকাও গুরুত্বপূর্ণ। আমরা শিক্ষাবান্ধব সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী শিক্ষার গুণগত মান উন্নয়নের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি। শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধিতে নিয়মিত ভাবে প্রতিটি বিদ্যালয় পরিদর্শন এবং শিক্ষকদের উপস্থিত নিশ্চিত করতে বদ্ধপরিকর।

বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি সারোয়ার জাহান বলেন, এ ধরণের মা সমাবেশ প্রতিটি বিদ্যালয়ে আয়োজন করার প্রয়োজন। এতে সন্তানদের শিক্ষিত করতে মায়েদের ভূমিকা সম্পর্কে আরো সচেতন হবেন তারা। ফলে আমরা শিক্ষিত জাতি হিসেবে বিশ্বে পরিচিতি লাভ করতে সক্ষম হবো। বড় হয়ে যেন সুশিক্ষায শিক্ষিত হয়ে ছাত্র ছাত্রীরা মানুষের মত মানুষ হয়।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক খালেদা বানু বলেন, বিদ্যালয়ে নিয়মিত শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি, শিক্ষার্থীরা নিজেরা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন, সুন্দর ও পরিস্কার স্কুল ড্রেস পরে স্কুলে আসা এবং দুপুরে বাইরের খাবার যেন শিক্ষার্থীরা না খায় সে ব্যাপারে অভিভাবকদের সচেতন থাকার আহবান জানান। উপবৃত্তির টাকা অভিভাবকগন  নিজেরা ব্যালেন্স চেক করবে, পিন নং কাউকে না দিবে না। টাকা না পেলে তারা যেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে জানায়।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

বায়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর বিদায় সংবর্ধনা ও মা সমাবেশ অনুষ্ঠিত

আপডেট সময় : ০১:৪২:৪৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ নভেম্বর ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীর পবা উপজেলার বায়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আয়োজনে অত্র বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা, অভিভাবকদের নিয়ে মা সমাবেশ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আয়োজিত মা সমাবেশে মায়েদের স্বতঃস্ফূর্ত উপস্থিতিতে এক উৎসব মূখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়। এসময় বিদায়ী শিক্ষার্থীদের শিক্ষা সামগ্রী ও রজনীগন্ধার ফুলের শুভেচ্ছা দেওয়া হয়। শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) সকাল ১০ টায় বায়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মিলনায়তনে ও ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ পবা এপির সহযোগিতায় বিদায় সংবর্ধনা, মা সমাবেশ ও আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি মো: সারোয়ার জাহান।

উপস্থিত ছিলেন উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ রফিকুল ইসলাম, উপজেলা রিসোর্স সেন্টার ইন্সট্রাক্টর মোছাঃ রেহেনা আক্তার, অত্র বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক খালেদা বানু, ব্যবস্থাপনা কমিটির সহ-সভাপতি আশরাফ আলী ও সদস্য মোসাঃ নাসরিন বেগম।

অত্র বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মনিকা মোস্তফা ও সাদিয়া ইসলাম এর যৌথ সঞ্চালনায় উপস্থিত ছিলেন অবসরপ্রাপ্ত সহঃ শিক্ষক মোসাঃ সায়লা বেগম ও মোসাঃ সেলিনা ইয়াসমিন সহ বিদ্যালয়ের সকল সহকারী শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষার্থীবৃন্দ।

বিদায়ী শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে চতুর্থ শ্রেণীর শিক্ষার্থী নাফিসা আক্তার মীম বলেন, আজকের পর আর কখনো বড় ভাই বোনদের সাথে খেলাধুলা, দেখা সাক্ষাৎ হবে না। নতুন প্রতিষ্ঠানে তারা ভালো করে পড়াশোনা করবে, ভালো মানুষ হবে। ভুল ত্রুটি মাফ করে দিবে।

উপস্থিত অভিভাবক মায়েদের বক্তব্যে পূর্বের চেয়ে লেখাপড়ার মান বৃদ্ধি পাওয়ায় বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার রফিকুল ইসলাম বলেন, শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধির লক্ষ্যে সরকার নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। বিদ্যালয়ের অবকাঠামো নির্মাণসহ অন্যান্য চাহিদা পূরণের জন্য শিক্ষাবান্ধব সরকার বিভিন্ন বরাদ্দ দিয়ে যাচ্ছেন। শিক্ষার পরিবেশ নিশ্চিত করতে বিদ্যালয়ের পাশাপাশি মায়েদের ভূমিকাও গুরুত্বপূর্ণ। আমরা শিক্ষাবান্ধব সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী শিক্ষার গুণগত মান উন্নয়নের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি। শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধিতে নিয়মিত ভাবে প্রতিটি বিদ্যালয় পরিদর্শন এবং শিক্ষকদের উপস্থিত নিশ্চিত করতে বদ্ধপরিকর।

বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি সারোয়ার জাহান বলেন, এ ধরণের মা সমাবেশ প্রতিটি বিদ্যালয়ে আয়োজন করার প্রয়োজন। এতে সন্তানদের শিক্ষিত করতে মায়েদের ভূমিকা সম্পর্কে আরো সচেতন হবেন তারা। ফলে আমরা শিক্ষিত জাতি হিসেবে বিশ্বে পরিচিতি লাভ করতে সক্ষম হবো। বড় হয়ে যেন সুশিক্ষায শিক্ষিত হয়ে ছাত্র ছাত্রীরা মানুষের মত মানুষ হয়।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক খালেদা বানু বলেন, বিদ্যালয়ে নিয়মিত শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি, শিক্ষার্থীরা নিজেরা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন, সুন্দর ও পরিস্কার স্কুল ড্রেস পরে স্কুলে আসা এবং দুপুরে বাইরের খাবার যেন শিক্ষার্থীরা না খায় সে ব্যাপারে অভিভাবকদের সচেতন থাকার আহবান জানান। উপবৃত্তির টাকা অভিভাবকগন  নিজেরা ব্যালেন্স চেক করবে, পিন নং কাউকে না দিবে না। টাকা না পেলে তারা যেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে জানায়।