ঢাকা ০২:৫৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
দর্শনা হল্ট রেলওয়ে পুলিশের সহযোগীতায় হারানো ব্যাগ সহ ব্যাগের মধ্যে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ফিরে পেলেন এক যাত্রী রাজশাহী জেলা শাখা স্বাচিপ সভাপতি ডা. জাহিদ ও সম্পাদক ডা. অর্ণা জামান চুয়াডাঙ্গায় রেললাইনে ফাটল ধীরগতি ট্রেন চলাচল দর্শনা হল্ট রেলওয়ে স্টেশনে বিশেষ অভিযানে সাগরদাড়ী এক্সপ্রেস ট্রেনের বগি থেকে একজন পকেটমার গ্রেফতার গুলিবিদ্ধ হয়ে জীবনশঙ্কায় স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী গাজা নিয়ে মতবিরোধ, প্রথম ইহুদি-আমেরিকান বাইডেন কর্মকর্তার পদত্যাগ শ্রম আইন সংশোধনে আইএলও’র পরামর্শ গ্রহণ নিয়ে নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ে আলোচনা হবে: আইনমন্ত্রী রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব থেকে শোইগুকে সরিয়ে দিচ্ছেন পুতিন ভয়াবহ আগুন ইসরাইল সেনাঘাঁটিতে নতুন করে চুরি হয়নি রিজার্ভ : বাংলাদেশ ব্যাংক

দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আওয়ামী লীগের কোন বিকল্প নেই -মেয়র লিটন

এসপি ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৫:২৭:৪৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২৩

সাত জানুয়ারি ২০২৪ দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের সংসদ সদস্য প্রার্থী মোহা. আসাদুজ্জামান আসাদকে বিজয়ী করার লক্ষ্যে পবা উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন সমূহের আয়োজনে বিশাল নির্বাচনী সভা অনুষ্ঠিত হয়। শনিবার (৩০ ডিসেম্বর) বিকেলে নওহাটা গরুর হাট সংলগ্ন মাঠে এ বিশাল নির্বাচনী সভায় অনুষ্ঠিত হয়। এ সভার প্রধান অতিথি রাজশাহী সিটি করপোরেশন মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। দেশের প্রতি আওয়ামী লীগের চেয়ে বেশি দরদ কারো নেই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার দেশের উন্নয়ন করেছে, মানুষের কল্যান করেছে। দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আওয়ামী লীগের কোন বিকল্প নেই। নৌকা মার্কা স্বাধীনতার প্রতীক, উন্নয়নের প্রতীক। সাত জানুয়ারি সারাদিন, নৌকা মার্কায় ভোট দিন।’ নির্বাচনী সভায় প্রধান অতিথি এসব কথা বলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারাদেশে মানুষকে সামাজিক সুরক্ষা বলয়ের আওতায় এনেছেন। বিভিন্ন ভাতা প্রদান করেছেন। আজ মানুষ তার প্রতিদান দিতে চায়। আজকে শীত উপেক্ষা করে হাজার হাজার নারী-পুরুষ সভায় এসেছেন। এটি প্রমান করে শেখ হাসিনার উন্নয়নের রাজনীতি বৃথা যায়নি।

প্রধান অতিথি আরও বলেন, যখন নির্বাচন আসে তখনই বিএনপি জামায়াত-নির্বাচনে অংশ নিতে চায় না। তারা জনগণের রায়ের মুখোমুখী হতে ভয় পায়, সেকারণে তারা নির্বাচনে অংশ নেয় না। তারা বলার মতো কোন ইতিবাচক কাজ করেনি। বিধায় তারা নির্বাচনে না এসে নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায়। তারা বিদেশীদের কাছে বলতে চায়, ‘এই নির্বাচনে জনগণ অংশ নেয়নি, ভোট দিতে আসেনি, কাজেই এই নির্বাচনের রায় মেনে নেওয়া যায় না।’ সেই কারণে তাদের মুখে ছাই দেওয়ার জন্য আজকের এই নির্বাচনী সভায় হাজার হাজার মানুষ এসেছেন। সাত জানুয়ারি সকাল সকাল ভোট কেন্দ্রে যাবেন। কেউ ভোট প্রদানে বাধা দিতে আসলে তাদেরকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশের নিকট সোর্পদ করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছেন। নির্বাচনী ইশতেহারে প্রথান অগ্রাধিকার হচ্ছে দ্রব্যমূল্যের দাম কমানো। যে সিন্ডিকেট রয়েছে, সেটি ভেঙ্গে দেওয়া হবে। আগামী ৫ বছরে ১ কোটি তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা হবে। শেখ হাসিনা যা বলেন, সেটিই করেন।

মেয়র লিটন বলেন, হযরত শাহ মখদুম বিমানবন্দের রানওয়ে সম্প্রসারণ করা হবে। দ্বিতীয় টার্মিনাল ভবন নির্মাণ করা হবে। এটি নির্মিত হলে রাজশাহী থেকে সরাসরি মধ্যপ্রাচ্যে সবজি, পান ইত্যাদি পণ্য রপ্তানী করা যাবে। এতে করে রাজশাহীর মানুষ লাভবান হবেন।
নির্বাচনী সভার প্রধান বক্তার বক্তব্যে রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনের আওয়ামী লীগ মনোনীত সংসদ সদস্য প্রার্থী মোহা. আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, আমার রাজনীতির অতীত মানুষকে সম্মান করা। আমার রাজনীতির পথচলা ঐক্যবদ্ধভাবে এলাকার উন্নয়নে নিজেকে সমাদৃত করা। সেই সুযোগ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে দিয়েছেন। আমি সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে রাজশাহীর মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের হাত ধরে পবা-মোহনপুরের উন্নয়ন বেগবান করতে চাই। আমি রাজনীতি করি সম্মান অর্জনের জন্য, অর্থ উপার্জনের জন্য নয়। আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে নিবেদিত মানুষ। আগামীতে খায়রুজ্জামান লিটনের হাত ধরে পবা-মোহনপুরের উন্নয়নে অবদান রাখতে চাই।

সভায় সভাপতিত্ব করেন পবা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াসিন আলী। সাবেক এমপি বেগম আখতার জাহান, হাবিবুর রহমান বাবু,আলী আজম সেন্টু, বাবু আলিল কুমার সরকার, মোস্তাফিজুর রহমান মাঞ্জাল, আতিকুর রহমান কালু, ফারুক হোসেন ডাবলু, জেবর আলী, গোলাম মোস্তফা, রাসিকের প্যানেল মেয়র-২ আব্দুল মোমিন, সিরাজুম মুবিন সবুজ, মাহমুদ হাসান রাজিব, এসএম তৌহিদ আল হাসান তুহিন, ফয়সাল আহমদ রুনু, মোস্তাফিজুর রহমান বাবু, আসাদুল্লাহ হিল গালিবসহ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী অঙ্গ সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ। সঞ্চালনায় পবা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও নওহাটা পৌরসভার মেয়র হাফিজুর রহমান।

এসপি/এন হক

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আওয়ামী লীগের কোন বিকল্প নেই -মেয়র লিটন

আপডেট সময় : ০৫:২৭:৪৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০২৩

সাত জানুয়ারি ২০২৪ দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের সংসদ সদস্য প্রার্থী মোহা. আসাদুজ্জামান আসাদকে বিজয়ী করার লক্ষ্যে পবা উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন সমূহের আয়োজনে বিশাল নির্বাচনী সভা অনুষ্ঠিত হয়। শনিবার (৩০ ডিসেম্বর) বিকেলে নওহাটা গরুর হাট সংলগ্ন মাঠে এ বিশাল নির্বাচনী সভায় অনুষ্ঠিত হয়। এ সভার প্রধান অতিথি রাজশাহী সিটি করপোরেশন মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। দেশের প্রতি আওয়ামী লীগের চেয়ে বেশি দরদ কারো নেই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার দেশের উন্নয়ন করেছে, মানুষের কল্যান করেছে। দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আওয়ামী লীগের কোন বিকল্প নেই। নৌকা মার্কা স্বাধীনতার প্রতীক, উন্নয়নের প্রতীক। সাত জানুয়ারি সারাদিন, নৌকা মার্কায় ভোট দিন।’ নির্বাচনী সভায় প্রধান অতিথি এসব কথা বলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারাদেশে মানুষকে সামাজিক সুরক্ষা বলয়ের আওতায় এনেছেন। বিভিন্ন ভাতা প্রদান করেছেন। আজ মানুষ তার প্রতিদান দিতে চায়। আজকে শীত উপেক্ষা করে হাজার হাজার নারী-পুরুষ সভায় এসেছেন। এটি প্রমান করে শেখ হাসিনার উন্নয়নের রাজনীতি বৃথা যায়নি।

প্রধান অতিথি আরও বলেন, যখন নির্বাচন আসে তখনই বিএনপি জামায়াত-নির্বাচনে অংশ নিতে চায় না। তারা জনগণের রায়ের মুখোমুখী হতে ভয় পায়, সেকারণে তারা নির্বাচনে অংশ নেয় না। তারা বলার মতো কোন ইতিবাচক কাজ করেনি। বিধায় তারা নির্বাচনে না এসে নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ করতে চায়। তারা বিদেশীদের কাছে বলতে চায়, ‘এই নির্বাচনে জনগণ অংশ নেয়নি, ভোট দিতে আসেনি, কাজেই এই নির্বাচনের রায় মেনে নেওয়া যায় না।’ সেই কারণে তাদের মুখে ছাই দেওয়ার জন্য আজকের এই নির্বাচনী সভায় হাজার হাজার মানুষ এসেছেন। সাত জানুয়ারি সকাল সকাল ভোট কেন্দ্রে যাবেন। কেউ ভোট প্রদানে বাধা দিতে আসলে তাদেরকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশের নিকট সোর্পদ করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছেন। নির্বাচনী ইশতেহারে প্রথান অগ্রাধিকার হচ্ছে দ্রব্যমূল্যের দাম কমানো। যে সিন্ডিকেট রয়েছে, সেটি ভেঙ্গে দেওয়া হবে। আগামী ৫ বছরে ১ কোটি তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা হবে। শেখ হাসিনা যা বলেন, সেটিই করেন।

মেয়র লিটন বলেন, হযরত শাহ মখদুম বিমানবন্দের রানওয়ে সম্প্রসারণ করা হবে। দ্বিতীয় টার্মিনাল ভবন নির্মাণ করা হবে। এটি নির্মিত হলে রাজশাহী থেকে সরাসরি মধ্যপ্রাচ্যে সবজি, পান ইত্যাদি পণ্য রপ্তানী করা যাবে। এতে করে রাজশাহীর মানুষ লাভবান হবেন।
নির্বাচনী সভার প্রধান বক্তার বক্তব্যে রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনের আওয়ামী লীগ মনোনীত সংসদ সদস্য প্রার্থী মোহা. আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, আমার রাজনীতির অতীত মানুষকে সম্মান করা। আমার রাজনীতির পথচলা ঐক্যবদ্ধভাবে এলাকার উন্নয়নে নিজেকে সমাদৃত করা। সেই সুযোগ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে দিয়েছেন। আমি সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে রাজশাহীর মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের হাত ধরে পবা-মোহনপুরের উন্নয়ন বেগবান করতে চাই। আমি রাজনীতি করি সম্মান অর্জনের জন্য, অর্থ উপার্জনের জন্য নয়। আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে নিবেদিত মানুষ। আগামীতে খায়রুজ্জামান লিটনের হাত ধরে পবা-মোহনপুরের উন্নয়নে অবদান রাখতে চাই।

সভায় সভাপতিত্ব করেন পবা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াসিন আলী। সাবেক এমপি বেগম আখতার জাহান, হাবিবুর রহমান বাবু,আলী আজম সেন্টু, বাবু আলিল কুমার সরকার, মোস্তাফিজুর রহমান মাঞ্জাল, আতিকুর রহমান কালু, ফারুক হোসেন ডাবলু, জেবর আলী, গোলাম মোস্তফা, রাসিকের প্যানেল মেয়র-২ আব্দুল মোমিন, সিরাজুম মুবিন সবুজ, মাহমুদ হাসান রাজিব, এসএম তৌহিদ আল হাসান তুহিন, ফয়সাল আহমদ রুনু, মোস্তাফিজুর রহমান বাবু, আসাদুল্লাহ হিল গালিবসহ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী অঙ্গ সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ। সঞ্চালনায় পবা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও নওহাটা পৌরসভার মেয়র হাফিজুর রহমান।

এসপি/এন হক