ঢাকা ০২:৪১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
দর্শনা হল্ট রেলওয়ে পুলিশের সহযোগীতায় হারানো ব্যাগ সহ ব্যাগের মধ্যে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ফিরে পেলেন এক যাত্রী রাজশাহী জেলা শাখা স্বাচিপ সভাপতি ডা. জাহিদ ও সম্পাদক ডা. অর্ণা জামান চুয়াডাঙ্গায় রেললাইনে ফাটল ধীরগতি ট্রেন চলাচল দর্শনা হল্ট রেলওয়ে স্টেশনে বিশেষ অভিযানে সাগরদাড়ী এক্সপ্রেস ট্রেনের বগি থেকে একজন পকেটমার গ্রেফতার গুলিবিদ্ধ হয়ে জীবনশঙ্কায় স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী গাজা নিয়ে মতবিরোধ, প্রথম ইহুদি-আমেরিকান বাইডেন কর্মকর্তার পদত্যাগ শ্রম আইন সংশোধনে আইএলও’র পরামর্শ গ্রহণ নিয়ে নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ে আলোচনা হবে: আইনমন্ত্রী রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব থেকে শোইগুকে সরিয়ে দিচ্ছেন পুতিন ভয়াবহ আগুন ইসরাইল সেনাঘাঁটিতে নতুন করে চুরি হয়নি রিজার্ভ : বাংলাদেশ ব্যাংক

রাজশাহী-১ (তানোর) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর নির্বাচনী জনসভা জনসমুদ্রে রুপান্তর 

মনিরুজ্জামান তানোর (রাজশাহী) প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৫:৪৪:২৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ জানুয়ারী ২০২৪
রাজশাহী-১ আসন তানোরে কাঁচি প্রতীকের নির্বাচনী জনসভা জনসমুদ্রে পরিনত হয়। প্রচার শেষ মুহুর্তে বৃহস্পতিবার(৪ জানুয়ারি )বিকেলে তানোর পৌর এলাকার ঐতিহ্য বাহী গোল্লাপাড়া ফুটবল মাঠে আওয়ামী লীগের বর্ষিয়ান নেতা এডভোকেট মুকবুল খাঁর সভাপতিত্বেনির্বাচনী জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনী জনসভা প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কাঁচি প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আ”লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য গোলাম রাব্বানী।
বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আ”লীগ নেতা আকতারুজ্জামান আকতার, কলমা ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপির) চেয়ারম্যান বর্ষিয়ান আ”লীগ নেতা খাদেমুন নবী বাবু চৌধুরী, উপজেলা আ”লীগের সাবেক সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন,  মুন্ডুমালা পৌর মেয়র সাইদুর রহমান, কামারগাঁ ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপির)  সাবেক চেয়ারম্যান মুসলেম উদ্দিন প্রামাণিক, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম, সাবেক মুন্ডুমালা পৌর আ”লীগের  সভাপতি এডভোকেট গোলাম মোস্তফা, আ”লীগ নেতা মুকুল কুমার ঘোষ, সাবেক ছাত্র লীগ নেতা মৃদুল কুমার ঘোষ।
আকতার বলেন, আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী ছিলাম। আমার এবং গোলাম রাব্বানীর রাজনৈতিক ইচ্ছা চেতনা এক অভিন্য। আমরা বর্তমান এমপির বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে না। আমরা এ আসন থেকে তাকে বিদায় করতে চাই । এজন্য আমি রাব্বানীকে সমর্থন দিয়ে ভোটের মাঠ থেকে সরে এসেছি। রাব্বানী আমার বড় ভাইয়ের মত কারন আমরা যদি নিজেদের মধ্যে ঐক্য গড়ে তুলতে না পারি তাহলে ভোটের মাঠে সমস্যা সৃষ্টি হবে। মুলত এ কারণে আমি সরে এসে রাব্বানী কে সমর্থন দিয়ে ভোটের মাঠে কাঁচি প্রতীকের জন্য ভোট প্রার্থনা করছি। আজকের (৪ জানুয়ারি )উপস্থিতি প্রমান করে আগামী সাত জানুয়ারি রবিবার ব্যাটলের মাধ্যমে অপশাসনের জবাব দিবেন আপনারা।
রাব্বানী বলেন, আমরা আওয়ামী লীগের আদর্শে বিশ্বাসী। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন এ নির্বাচনকে উন্মুক্ত করে দিয়েছেন। কারণ এবারের ভোটে বিএনপি জামায়াত অংশ গ্রহন করছেন না। সুতরাং আগামী বরিবার দলমত নির্বিশেষে আপনারা আমাকে ভোট দিবেন। কি দিবেন না, উপস্থিত হাজারো জনতা তার এমন কথা শুনে কাঁচি কাঁচি স্লোগানে মুখরিত করে তুলেন জনসভা স্থল। রাব্বানী আরো বলেন, আমার বাব দাদারা মানুষের সেবা করে খাদেম হিসেবে পরিচিত। আমিও দীর্ঘ ১৬ বছরের মধ্যে দুবার মুন্ডুমালা পৌর মেয়র ও পাঁচন্দর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপির) দুবারের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছি। আমার কাছে সবাই মূল্যবান ব্যক্তি। আমার দরজা এমনকি বেড রুমও সবার জন্য উন্মুক্ত।
তিনি বর্তমান এমপির সমালোচনা করে আরো বলেন, আপনি বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধামকি দিচ্ছেন কেন? আপনি দীর্ঘ ১৫ বছর এমপির দায়িত্ব পালন করেছেন, কেন হুমকি ধামকি দিতে হবে। আসলে আপনি মানুষ কে ভালোবাসতে জানেন না, মানুষের মনের কথা বুঝেন না, নেতাকর্মী দের মূল্যায়ন করতে জানেন না, আপনি জানেন ধমক দিতে আর বানিজ্য করতে। যদি বুঝতেন তাহলে আপনার আজ এই অবস্থার সৃষ্টি হত না। আজ এই জনসভায় হাজারো মানুষ এসেছে শুধু ভালোবেসে। আপনার লোক দিয়ে পুরাতন ভাংগাচোরা মোটরসাইকেলে আগুন দিয়ে আমার কাঁচি প্রতীকের ২০ জনের মত কর্মী সমর্থকের নামে মামলা দিয়েছেন, আমার ছোট ভাই মেয়র সাইদুর আদালত থেকে আজকে তাদের জামিন করেছেন। আপনার এসব অপকর্মের জবাব আগামী সাত জানুয়ারি রবিবার ব্যালটের মাধ্যমে জনগণ দিবেন, কি আপনারা ভোট দিবেন না, হ্যাঁ বলে হাজারো জনতা করতালি দিয়ে দুহাত উচু করে কাঁচি কাঁচি বলে স্লোগান শুরু করেন।
সভাপতির বক্তব্যে মুকবুল খাঁ   বলেন, রাহুগ্রাস ও জমিদারি শাসনের জবাব দিতে হলে রবিবার সকাল সকাল ভোটকেন্দ্রে গিয়ে কাঁচি প্রতীকে ভোট দিতে হবে। এ আসনে কাঁচির যে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে তা কল্পনাতীত। কারণ মানুষ মুক্তি চায়, আমাদের মত প্রবীণ আ”লীগ নেতারা এমপির বিরুদ্ধে জোট বেধেছেন, বিজয় আমাদের সুনিশ্চিত ইনশাআল্লাহ।
দুপুরের পর  বিভিন্ন ইউনিয়ন ও পৌর এলাকা থেকে কাঁচি প্রতীকের পক্ষে  বিশাল বিশাল মিছিল নিয়ে আসে জনসভাস্থলে । সভা শুরুর আগেই মাঠ কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে পড়ে। শুধু সভাস্থল না পাশ্ববর্তী রাস্তা ও বাজারেও ছিল লোকের সমাগম  চোখে পড়ার মত। সঞ্চালনায় পৌর যুবলীগ সভাপতি রাজিব সরকার হিরো।
ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

রাজশাহী-১ (তানোর) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর নির্বাচনী জনসভা জনসমুদ্রে রুপান্তর 

আপডেট সময় : ০৫:৪৪:২৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ জানুয়ারী ২০২৪
রাজশাহী-১ আসন তানোরে কাঁচি প্রতীকের নির্বাচনী জনসভা জনসমুদ্রে পরিনত হয়। প্রচার শেষ মুহুর্তে বৃহস্পতিবার(৪ জানুয়ারি )বিকেলে তানোর পৌর এলাকার ঐতিহ্য বাহী গোল্লাপাড়া ফুটবল মাঠে আওয়ামী লীগের বর্ষিয়ান নেতা এডভোকেট মুকবুল খাঁর সভাপতিত্বেনির্বাচনী জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনী জনসভা প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কাঁচি প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আ”লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য গোলাম রাব্বানী।
বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আ”লীগ নেতা আকতারুজ্জামান আকতার, কলমা ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপির) চেয়ারম্যান বর্ষিয়ান আ”লীগ নেতা খাদেমুন নবী বাবু চৌধুরী, উপজেলা আ”লীগের সাবেক সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন,  মুন্ডুমালা পৌর মেয়র সাইদুর রহমান, কামারগাঁ ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপির)  সাবেক চেয়ারম্যান মুসলেম উদ্দিন প্রামাণিক, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম, সাবেক মুন্ডুমালা পৌর আ”লীগের  সভাপতি এডভোকেট গোলাম মোস্তফা, আ”লীগ নেতা মুকুল কুমার ঘোষ, সাবেক ছাত্র লীগ নেতা মৃদুল কুমার ঘোষ।
আকতার বলেন, আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী ছিলাম। আমার এবং গোলাম রাব্বানীর রাজনৈতিক ইচ্ছা চেতনা এক অভিন্য। আমরা বর্তমান এমপির বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে না। আমরা এ আসন থেকে তাকে বিদায় করতে চাই । এজন্য আমি রাব্বানীকে সমর্থন দিয়ে ভোটের মাঠ থেকে সরে এসেছি। রাব্বানী আমার বড় ভাইয়ের মত কারন আমরা যদি নিজেদের মধ্যে ঐক্য গড়ে তুলতে না পারি তাহলে ভোটের মাঠে সমস্যা সৃষ্টি হবে। মুলত এ কারণে আমি সরে এসে রাব্বানী কে সমর্থন দিয়ে ভোটের মাঠে কাঁচি প্রতীকের জন্য ভোট প্রার্থনা করছি। আজকের (৪ জানুয়ারি )উপস্থিতি প্রমান করে আগামী সাত জানুয়ারি রবিবার ব্যাটলের মাধ্যমে অপশাসনের জবাব দিবেন আপনারা।
রাব্বানী বলেন, আমরা আওয়ামী লীগের আদর্শে বিশ্বাসী। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন এ নির্বাচনকে উন্মুক্ত করে দিয়েছেন। কারণ এবারের ভোটে বিএনপি জামায়াত অংশ গ্রহন করছেন না। সুতরাং আগামী বরিবার দলমত নির্বিশেষে আপনারা আমাকে ভোট দিবেন। কি দিবেন না, উপস্থিত হাজারো জনতা তার এমন কথা শুনে কাঁচি কাঁচি স্লোগানে মুখরিত করে তুলেন জনসভা স্থল। রাব্বানী আরো বলেন, আমার বাব দাদারা মানুষের সেবা করে খাদেম হিসেবে পরিচিত। আমিও দীর্ঘ ১৬ বছরের মধ্যে দুবার মুন্ডুমালা পৌর মেয়র ও পাঁচন্দর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপির) দুবারের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছি। আমার কাছে সবাই মূল্যবান ব্যক্তি। আমার দরজা এমনকি বেড রুমও সবার জন্য উন্মুক্ত।
তিনি বর্তমান এমপির সমালোচনা করে আরো বলেন, আপনি বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধামকি দিচ্ছেন কেন? আপনি দীর্ঘ ১৫ বছর এমপির দায়িত্ব পালন করেছেন, কেন হুমকি ধামকি দিতে হবে। আসলে আপনি মানুষ কে ভালোবাসতে জানেন না, মানুষের মনের কথা বুঝেন না, নেতাকর্মী দের মূল্যায়ন করতে জানেন না, আপনি জানেন ধমক দিতে আর বানিজ্য করতে। যদি বুঝতেন তাহলে আপনার আজ এই অবস্থার সৃষ্টি হত না। আজ এই জনসভায় হাজারো মানুষ এসেছে শুধু ভালোবেসে। আপনার লোক দিয়ে পুরাতন ভাংগাচোরা মোটরসাইকেলে আগুন দিয়ে আমার কাঁচি প্রতীকের ২০ জনের মত কর্মী সমর্থকের নামে মামলা দিয়েছেন, আমার ছোট ভাই মেয়র সাইদুর আদালত থেকে আজকে তাদের জামিন করেছেন। আপনার এসব অপকর্মের জবাব আগামী সাত জানুয়ারি রবিবার ব্যালটের মাধ্যমে জনগণ দিবেন, কি আপনারা ভোট দিবেন না, হ্যাঁ বলে হাজারো জনতা করতালি দিয়ে দুহাত উচু করে কাঁচি কাঁচি বলে স্লোগান শুরু করেন।
সভাপতির বক্তব্যে মুকবুল খাঁ   বলেন, রাহুগ্রাস ও জমিদারি শাসনের জবাব দিতে হলে রবিবার সকাল সকাল ভোটকেন্দ্রে গিয়ে কাঁচি প্রতীকে ভোট দিতে হবে। এ আসনে কাঁচির যে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে তা কল্পনাতীত। কারণ মানুষ মুক্তি চায়, আমাদের মত প্রবীণ আ”লীগ নেতারা এমপির বিরুদ্ধে জোট বেধেছেন, বিজয় আমাদের সুনিশ্চিত ইনশাআল্লাহ।
দুপুরের পর  বিভিন্ন ইউনিয়ন ও পৌর এলাকা থেকে কাঁচি প্রতীকের পক্ষে  বিশাল বিশাল মিছিল নিয়ে আসে জনসভাস্থলে । সভা শুরুর আগেই মাঠ কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে পড়ে। শুধু সভাস্থল না পাশ্ববর্তী রাস্তা ও বাজারেও ছিল লোকের সমাগম  চোখে পড়ার মত। সঞ্চালনায় পৌর যুবলীগ সভাপতি রাজিব সরকার হিরো।