ঢাকা ০৩:৫১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
দর্শনা হল্ট রেলওয়ে পুলিশের সহযোগীতায় হারানো ব্যাগ সহ ব্যাগের মধ্যে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ফিরে পেলেন এক যাত্রী রাজশাহী জেলা শাখা স্বাচিপ সভাপতি ডা. জাহিদ ও সম্পাদক ডা. অর্ণা জামান চুয়াডাঙ্গায় রেললাইনে ফাটল ধীরগতি ট্রেন চলাচল দর্শনা হল্ট রেলওয়ে স্টেশনে বিশেষ অভিযানে সাগরদাড়ী এক্সপ্রেস ট্রেনের বগি থেকে একজন পকেটমার গ্রেফতার গুলিবিদ্ধ হয়ে জীবনশঙ্কায় স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী গাজা নিয়ে মতবিরোধ, প্রথম ইহুদি-আমেরিকান বাইডেন কর্মকর্তার পদত্যাগ শ্রম আইন সংশোধনে আইএলও’র পরামর্শ গ্রহণ নিয়ে নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ে আলোচনা হবে: আইনমন্ত্রী রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব থেকে শোইগুকে সরিয়ে দিচ্ছেন পুতিন ভয়াবহ আগুন ইসরাইল সেনাঘাঁটিতে নতুন করে চুরি হয়নি রিজার্ভ : বাংলাদেশ ব্যাংক

রাজশাহীর ৫টি নৌকা ১টি আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিজয়

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৩:৫৬:৪৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৮ জানুয়ারী ২০২৪

রাজশাহী থেকে ইউসুফ চৌধুরী: দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাজশাহীর ৬টি আসনের বেসরকারী ফলাফল পাওয়া গেছে। বেসরকারী ফলাফলে একটিতে স্বতন্ত্র ও বাকি ৫টিতে নৌকার বিজয় হয়েছে। রোববার (৭ জানুয়ারী) সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে চলে বিকেল চারটা পর্যন্ত। ভোট গ্রহণ শেষে শুরু হয় গণনা। রাত সাড়ে ৮টার পর থেকে একটি একটি কেন্দ্র থেকে ফলাফল আসতে শুরু করে। সবশেষ বেসরকারী ফলাফলে রাজশাহীর ৬টি আসনের মধ্যে একটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও ৫টিতেই নৌকার প্রার্থীর বিজয় হয়েছে।

রাজশাহী-১ (তানোর-গোদাগাড়ী) আসনে আবারো নৌকার জয় হয়েছে। এ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনিত প্রার্থী এমপি ওমর ফারুক চৌধুরী আবারো নির্বাচিত হয়েছেন। নৌকা প্রতিক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ১ লাখ ৩ হাজার ৫৯২ ভোট ও একই দলের কাঁচি প্রতিক স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম রাব্বানী পেয়েছেন ৯২ হাজার ৪১৯ ভোট।

রাজশাহীর-২ (সদর) আসনে আওয়ামী লীগেরই স্বতন্ত্র প্রার্থী অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা (কাঁচি) বিজয়ী হয়েছেন। চতুর্থবারের মত নৌকায় উঠে ভোট করা ওয়ার্কার্স পার্টির ফজলে হোসেন বাদশা এবার নৌকা থেকে ছিটকে গেছেন। এ আসনে ১১২টি কেন্দ্রের ফলাফলে শফিকুর রহমান বাদশা পেয়েছেন ৫৫ হাজার ১৫৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি নৌকা প্রতিকের প্রার্থী এমপি ফজলে হোসেন বাদশা পেয়েছেন ৩১ হাজার ৪৬০ ভোট। রাজশাহী সদর আসনে ২৩ হাজার ৬৯৬ ভোটের ব্যবধানে স্বতন্ত্র কাঁচির প্রার্থী রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা বিজয়ী হয়েছেন।

রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনে নৌকার জয়জয়কার হয়েছে। এখানে নিজ দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী বা অন্য দলের শক্ত প্রার্থী ছিলো না। এ আসন থেকে এবার নৌকা প্রতিক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেন আসাদুজ্জামান আসাদ। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিল জাতীয় পার্টির আব্দুস সালাম। আসাদ নৌকা প্রতিক নিয়ে পেয়েছেন ১ লাখ ৫৪ হাজার ৯০৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আব্দুস সালাম লাঙ্গল প্রতিক নিয়ে পেয়েছেন ৫ হাজার ২৭৪ ভোট।

রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনেও হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করে জয়ী হয়েছে নৌকা। একটি মাত্র উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসনটিতে আওয়ামী লীগেরই দুই হেবিওয়েট প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করেন আবুল কালাম আজাদ। আর দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে নির্বাচন করেন এমপি এনামুল হক। নৌকার প্রার্থী কালাম পেয়েছেন ১ লাখ ৭ হাজার ৯৮৩ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি এমপি এনামুল হক পেয়েছেন ৫৩ হাজার ৮১২ ভোট।

রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া-দুর্গাপুর) আসনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে। জয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের মনোনিত প্রার্থী সাবেক এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওয়াদুদ দারা। নৌকা প্রতিকে পেয়েছেন ৮৬ হাজার ৯১৩ ভোট। আসনটিতে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি একই দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী ছিলেন ওবায়দুর রহমান (ঈগল) প্রতিকে পেয়েছেন ৮৩ হাজার ৮৬২ ভোট।

রাজশাহী-৬ (বাঘা-চারঘাট) এ আসনে চতুর্থবারের মত নির্বাচিত হয়েছেন নৌকা প্রার্থী ও বর্তমান পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। অন্য আসনের মতই এ আসনেও শাহরিয়ারের ছিল আওয়ামী লীগেরই শক্ত স্বতন্ত্র প্রার্থী। রাজশাহী-৬ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করেন শাহরিয়ার আলম। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন সাবেক এমপি স্বতন্ত্র প্রার্থী রাহেনুল হক রায়হান (কাঁচি)। বেসরকারী ফলাফলে দেখা গেছে-এ আসনে শাহরিয়ার আলম পেয়েছেন (নৗকা) ১ লাখ ১ হাজার ৫৯৯ ভোট ও স্বতন্ত্র প্রার্থী রায়হান (কাঁচি) পেয়েছেন ৭৪ হাজার ২৭৮ ভোট। ফলাফলে শাহরিয়ার আলম ২৭ হাজার ৩২১ ভোটে বিজয়ী হয়েছেন।

রাজশাহী জেলায় মোট ভোটার ছিল ২১ লাখ ৭৭ হাজার ৭১৪। ভোটকেন্দ্র ৭৭০টি। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১০ লাখ ৮৪ হাজার ৭৩০ জন। নারী ভোটার ১০ লাখ ৯২ হাজার ২৯৬ জন। তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার ১৮ জন। ভোটকক্ষ ছিল ৪ হাজার ৯৬৩টি। রাজশাহীর ছয়টি আসনের মধ্যে ৯টি উপজেলা, ১৪টি পৌরসভা ও ৭২টি ইউনিয়ন। এর মধ্যে রাজশাহী-২ আসনটি সিটি করপোরেশনের মধ্যে।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

রাজশাহীর ৫টি নৌকা ১টি আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিজয়

আপডেট সময় : ০৩:৫৬:৪৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৮ জানুয়ারী ২০২৪

রাজশাহী থেকে ইউসুফ চৌধুরী: দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাজশাহীর ৬টি আসনের বেসরকারী ফলাফল পাওয়া গেছে। বেসরকারী ফলাফলে একটিতে স্বতন্ত্র ও বাকি ৫টিতে নৌকার বিজয় হয়েছে। রোববার (৭ জানুয়ারী) সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে চলে বিকেল চারটা পর্যন্ত। ভোট গ্রহণ শেষে শুরু হয় গণনা। রাত সাড়ে ৮টার পর থেকে একটি একটি কেন্দ্র থেকে ফলাফল আসতে শুরু করে। সবশেষ বেসরকারী ফলাফলে রাজশাহীর ৬টি আসনের মধ্যে একটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও ৫টিতেই নৌকার প্রার্থীর বিজয় হয়েছে।

রাজশাহী-১ (তানোর-গোদাগাড়ী) আসনে আবারো নৌকার জয় হয়েছে। এ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনিত প্রার্থী এমপি ওমর ফারুক চৌধুরী আবারো নির্বাচিত হয়েছেন। নৌকা প্রতিক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ১ লাখ ৩ হাজার ৫৯২ ভোট ও একই দলের কাঁচি প্রতিক স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম রাব্বানী পেয়েছেন ৯২ হাজার ৪১৯ ভোট।

রাজশাহীর-২ (সদর) আসনে আওয়ামী লীগেরই স্বতন্ত্র প্রার্থী অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা (কাঁচি) বিজয়ী হয়েছেন। চতুর্থবারের মত নৌকায় উঠে ভোট করা ওয়ার্কার্স পার্টির ফজলে হোসেন বাদশা এবার নৌকা থেকে ছিটকে গেছেন। এ আসনে ১১২টি কেন্দ্রের ফলাফলে শফিকুর রহমান বাদশা পেয়েছেন ৫৫ হাজার ১৫৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি নৌকা প্রতিকের প্রার্থী এমপি ফজলে হোসেন বাদশা পেয়েছেন ৩১ হাজার ৪৬০ ভোট। রাজশাহী সদর আসনে ২৩ হাজার ৬৯৬ ভোটের ব্যবধানে স্বতন্ত্র কাঁচির প্রার্থী রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা বিজয়ী হয়েছেন।

রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনে নৌকার জয়জয়কার হয়েছে। এখানে নিজ দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী বা অন্য দলের শক্ত প্রার্থী ছিলো না। এ আসন থেকে এবার নৌকা প্রতিক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেন আসাদুজ্জামান আসাদ। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিল জাতীয় পার্টির আব্দুস সালাম। আসাদ নৌকা প্রতিক নিয়ে পেয়েছেন ১ লাখ ৫৪ হাজার ৯০৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আব্দুস সালাম লাঙ্গল প্রতিক নিয়ে পেয়েছেন ৫ হাজার ২৭৪ ভোট।

রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনেও হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করে জয়ী হয়েছে নৌকা। একটি মাত্র উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসনটিতে আওয়ামী লীগেরই দুই হেবিওয়েট প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করেন আবুল কালাম আজাদ। আর দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে নির্বাচন করেন এমপি এনামুল হক। নৌকার প্রার্থী কালাম পেয়েছেন ১ লাখ ৭ হাজার ৯৮৩ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি এমপি এনামুল হক পেয়েছেন ৫৩ হাজার ৮১২ ভোট।

রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া-দুর্গাপুর) আসনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে। জয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের মনোনিত প্রার্থী সাবেক এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওয়াদুদ দারা। নৌকা প্রতিকে পেয়েছেন ৮৬ হাজার ৯১৩ ভোট। আসনটিতে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি একই দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী ছিলেন ওবায়দুর রহমান (ঈগল) প্রতিকে পেয়েছেন ৮৩ হাজার ৮৬২ ভোট।

রাজশাহী-৬ (বাঘা-চারঘাট) এ আসনে চতুর্থবারের মত নির্বাচিত হয়েছেন নৌকা প্রার্থী ও বর্তমান পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। অন্য আসনের মতই এ আসনেও শাহরিয়ারের ছিল আওয়ামী লীগেরই শক্ত স্বতন্ত্র প্রার্থী। রাজশাহী-৬ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করেন শাহরিয়ার আলম। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন সাবেক এমপি স্বতন্ত্র প্রার্থী রাহেনুল হক রায়হান (কাঁচি)। বেসরকারী ফলাফলে দেখা গেছে-এ আসনে শাহরিয়ার আলম পেয়েছেন (নৗকা) ১ লাখ ১ হাজার ৫৯৯ ভোট ও স্বতন্ত্র প্রার্থী রায়হান (কাঁচি) পেয়েছেন ৭৪ হাজার ২৭৮ ভোট। ফলাফলে শাহরিয়ার আলম ২৭ হাজার ৩২১ ভোটে বিজয়ী হয়েছেন।

রাজশাহী জেলায় মোট ভোটার ছিল ২১ লাখ ৭৭ হাজার ৭১৪। ভোটকেন্দ্র ৭৭০টি। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১০ লাখ ৮৪ হাজার ৭৩০ জন। নারী ভোটার ১০ লাখ ৯২ হাজার ২৯৬ জন। তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার ১৮ জন। ভোটকক্ষ ছিল ৪ হাজার ৯৬৩টি। রাজশাহীর ছয়টি আসনের মধ্যে ৯টি উপজেলা, ১৪টি পৌরসভা ও ৭২টি ইউনিয়ন। এর মধ্যে রাজশাহী-২ আসনটি সিটি করপোরেশনের মধ্যে।