ঢাকা ০২:৩৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
দর্শনা হল্ট রেলওয়ে পুলিশের সহযোগীতায় হারানো ব্যাগ সহ ব্যাগের মধ্যে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ফিরে পেলেন এক যাত্রী রাজশাহী জেলা শাখা স্বাচিপ সভাপতি ডা. জাহিদ ও সম্পাদক ডা. অর্ণা জামান চুয়াডাঙ্গায় রেললাইনে ফাটল ধীরগতি ট্রেন চলাচল দর্শনা হল্ট রেলওয়ে স্টেশনে বিশেষ অভিযানে সাগরদাড়ী এক্সপ্রেস ট্রেনের বগি থেকে একজন পকেটমার গ্রেফতার গুলিবিদ্ধ হয়ে জীবনশঙ্কায় স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী গাজা নিয়ে মতবিরোধ, প্রথম ইহুদি-আমেরিকান বাইডেন কর্মকর্তার পদত্যাগ শ্রম আইন সংশোধনে আইএলও’র পরামর্শ গ্রহণ নিয়ে নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ে আলোচনা হবে: আইনমন্ত্রী রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব থেকে শোইগুকে সরিয়ে দিচ্ছেন পুতিন ভয়াবহ আগুন ইসরাইল সেনাঘাঁটিতে নতুন করে চুরি হয়নি রিজার্ভ : বাংলাদেশ ব্যাংক

রাজশাহী জেলা পরিষদ বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন

এসপি ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০১:৫৮:০৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ জানুয়ারী ২০২৪

১০ জানুয়ারী ১৯৭২ সালের এইদিনে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের বন্দীদশা থেকে মুক্তি পেয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে প্রত্যাবর্তন করেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে রাজশাহী জেলা পরিষদ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে।

আজ বুধবার (১০ জানুয়ারী) সকালে জেলা পরিষদ ভবনে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন ও দোয়া শেষে আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য এবং রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল। স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের আলোচনা সভায় অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল। তার বক্তব্যে বলেন, আমি আজকের আলোচনা সভায় প্রথমেই শ্রদ্ধা জানাই হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব সহ ১৫ আগষ্ট নিহত তার পরিবারবর্গকে। আরো শ্রদ্ধা জানাই জাতীয় চার নেতা, শহিদ মুক্তিযোদ্ধা, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা, ৩০ লক্ষ শহিদ ও বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে।

এসময় তিনি বলেন, আমার সৌভাগ্য হয়েছিল ১৯৭২ সালে ১০ জানুয়ারীতে ঢাকার তেজগাঁ বিমান বন্দরে উপস্থিত থেকে জাতির পিতাকে বরণ করা। এসময় তিনি বঙ্গবন্ধুর সাথে উপস্থিত থাকাকালীন সময়ের বিভিন্ন ঘটনা নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন। তিনি আরোও বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০৪০ সালের মধ্যে যে স্মার্ট বাংলাদেশের ঘোষণা দিয়েছেন তার বাস্তবায়ন হবে ইনশাল্লাহ। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বলেন, এই বাংলাদেশকে নিয়ে নানান ভাবে ষড়যন্ত্র করে দেশেকে পিছিয়ে দেওয়া পরিকল্পনা করা হচ্ছে। যার বলে ছিলেন বাংলার মাটিতে আর কোন নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না। আজ তাদের উদ্দেশ্য করে বলতে চাই বাংলাদেশে সুষ্ট নির্বাচন হয়েছে। জনগণের ভোটের মাধ্যমে নৌকা বিজয় হয়েছে। তাই দেশেকে আর পিছিয়ে ফেলা যাবে না। বাংলাদেশ আবারোও এগিয়ে যাবে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেতৃত্বে।

এছাড়াও আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মু: রেজা হাসান, সহকারী প্রকৌশলী এজাজুল আলম, উপ সহকারী প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন হিসাবরক্ষক আব্দুল মতিন, সার্ভেয়ার আলিফ আলী। চেয়ারম্যানের ব্যাক্তি গত সহকারী ফজলে এলাহী সোহেল ও সুলতানুর আরেফিনসহ অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচরী উপস্থিত ছিলেন।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

রাজশাহী জেলা পরিষদ বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন

আপডেট সময় : ০১:৫৮:০৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ জানুয়ারী ২০২৪

১০ জানুয়ারী ১৯৭২ সালের এইদিনে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের বন্দীদশা থেকে মুক্তি পেয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে প্রত্যাবর্তন করেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে রাজশাহী জেলা পরিষদ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে।

আজ বুধবার (১০ জানুয়ারী) সকালে জেলা পরিষদ ভবনে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন ও দোয়া শেষে আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য এবং রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল। স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের আলোচনা সভায় অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল। তার বক্তব্যে বলেন, আমি আজকের আলোচনা সভায় প্রথমেই শ্রদ্ধা জানাই হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব সহ ১৫ আগষ্ট নিহত তার পরিবারবর্গকে। আরো শ্রদ্ধা জানাই জাতীয় চার নেতা, শহিদ মুক্তিযোদ্ধা, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা, ৩০ লক্ষ শহিদ ও বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে।

এসময় তিনি বলেন, আমার সৌভাগ্য হয়েছিল ১৯৭২ সালে ১০ জানুয়ারীতে ঢাকার তেজগাঁ বিমান বন্দরে উপস্থিত থেকে জাতির পিতাকে বরণ করা। এসময় তিনি বঙ্গবন্ধুর সাথে উপস্থিত থাকাকালীন সময়ের বিভিন্ন ঘটনা নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন। তিনি আরোও বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০৪০ সালের মধ্যে যে স্মার্ট বাংলাদেশের ঘোষণা দিয়েছেন তার বাস্তবায়ন হবে ইনশাল্লাহ। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বলেন, এই বাংলাদেশকে নিয়ে নানান ভাবে ষড়যন্ত্র করে দেশেকে পিছিয়ে দেওয়া পরিকল্পনা করা হচ্ছে। যার বলে ছিলেন বাংলার মাটিতে আর কোন নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না। আজ তাদের উদ্দেশ্য করে বলতে চাই বাংলাদেশে সুষ্ট নির্বাচন হয়েছে। জনগণের ভোটের মাধ্যমে নৌকা বিজয় হয়েছে। তাই দেশেকে আর পিছিয়ে ফেলা যাবে না। বাংলাদেশ আবারোও এগিয়ে যাবে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেতৃত্বে।

এছাড়াও আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মু: রেজা হাসান, সহকারী প্রকৌশলী এজাজুল আলম, উপ সহকারী প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন হিসাবরক্ষক আব্দুল মতিন, সার্ভেয়ার আলিফ আলী। চেয়ারম্যানের ব্যাক্তি গত সহকারী ফজলে এলাহী সোহেল ও সুলতানুর আরেফিনসহ অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচরী উপস্থিত ছিলেন।